skip to Main Content

ফিচার I বৈপরীত্যের বিশ্বজয়

উল্টে যাচ্ছে মেকআপের প্রচলিত নিয়ম। পরীক্ষামূলক থেকে পরিণত হচ্ছে পাকাপোক্ত ট্রেন্ডে

নতুন সব নিয়ম তৈরি হয়ে চলেছে সৌন্দর্যবিশ্বে। অনেক সময় উদ্ভট লুকও হয়ে উঠছে সৌন্দর্যের সমকালীন স্টেটমেন্ট। গেল বছর রেড কার্পেটে এর প্রভাব দেখা গেছে। পরীক্ষামূলক হলেও এই রিভার্স মেকআপ বছরের শুরু থেকে ব্যাপকভাবে ফিরে এসেছে আলোচনায়। ফলে উল্টো পথে চলছে আইলাইনারের লাইন। উপরে নয় বরং চোখের নিচে নেমে এসেছে আইশ্যাডোর রঙ। রিভার্স ট্রেন্ডের বদৌলতে বদলে গেছে লিপস্টিক প্রয়োগের পদ্ধতিও। মেকআপের এ মোচড় পাল্টে দিচ্ছে মেকআপের সংস্কৃতি।
আন্ডারলাইনার
রিভার্স বিউটি ট্রেন্ডের সহজতম সংযোজন। এতে চোখের আপারলাইনের বদলে লোয়ার লাইনে রেখা টেনে নেয়া হয়। তবে প্রয়োগের পদ্ধতি আর রঙের ভিন্নতায় বৈচিত্র্য যোগ করা যায় লুকে। ক্ল্যাসিক আন্ডারলাইনড আইলুকের জন্য কাজলের কালো টানই যথেষ্ট। লোয়ার ল্যাশলাইনের সঙ্গে ওয়াটারলাইনেও যেন গাঢ় কাজলের টান থাকে। এতে আরও বেশি নাটকীয় ভাব তৈরি হবে চেহারায়। কালোর বদলে সাদা বেশ ব্যবহৃত হচ্ছে আন্ডারলাইনড স্টাইলে। তবে বোল্ড এ লুকের সঙ্গে সামঞ্জস্য তৈরির জন্য সামান্য রঙ ব্যবহার করা যেতে পারে আইলিডে। লেটেস্ট সেলিব্রিটি ইন্সপায়ারড ট্রেন্ডে সাজতে চাইলে রঙিন রেখা টানতে হবে চোখের নিচজুড়ে। হালের মনোক্রোমেটিক কিংবা নো মেকআপ লুকের সাদামাটা চোখের সাজে হঠাৎ কোনো উজ্জ্বল রঙের একটা রেখাই পুরো সাজকে আকর্ষক করে তুলতে যথেষ্ট। আন্ডারআইলাইনড লুকের জন্য রঙ বাছাইয়ে সতর্কতা প্রয়োজন। কালারহুইল ঘেঁটে চোখের রঙের ঠিক বিপরীত শেডটা বেছে নেয়া এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি। নীল চোখের জন্য বেগুনি আইলাইনার যেমন মানানসই, বাদামি চোখের সঙ্গে কোবাল্টের যেকোনো শেড তেমনি চমৎকার দেখায়। সবুজ চোখে গোলাপি লাইন আর হ্যাজেল রঙা চোখে গোল্ড একসেন্টযুক্ত ব্রোঞ্জ টোনের লাইনার দেখাবে নজরকাড়া। প্রয়োগ পদ্ধতিতেও ভিন্নতা থাকতে পারে। আন্ডারআইলাইন সামান্য স্মাজ করে নিলে কোমলতা তৈরি হবে সাজে। আর যারা খুব রঙচঙে চোখে অস্বচ্ছন্দ, তাদের জন্যও উপায় রয়েছে। চোখের কোণে রঙিন রেখা না টেনে শিমার যোগ করে নেয়া যেতে পারে। আরও বেশি আন্ডারস্টেটেড লুকের জন্য শুধু ওয়াটারলাইনে টেনে নেয়া যেতে পারে রঙিন কাজল-রেখা। পারফেক্ট আন্ডারআইলাইনড লুকের জন্য কিছু শর্ত মেনে নেয়া প্রয়োজন। প্রথমত আপারআইলিং সাদামাটা রাখতে হবে। বেশি রঙচঙে আইশ্যাডো ব্যবহার না করে নিউট্রাল রঙগুলো বেছে নেয়াই ভালো। আপার আইল্যাশ ঘেঁষে কালো কিংবা বাদামি লাইনার দিয়ে লাইন টেনে নিলে ডিফাইনড হবে পুরো লুক। সঙ্গে মাসকারার ব্যবহার অপরিহার্য। সঙ্গে ল্যাশটা কার্ল করে নিতে পারলে তো আরও ভালো। কার্লের পর আরেক কোট মাসকারায় পরিপূর্ণ হবে সাজ। নতুবা মøান ভাব তৈরি হবে চোখে। ক্লান্ত দেখাবে চেহারা।
আপসাইড ডাউন স্মোকি আই
আসছে সময়েও মেকআপ ট্রেন্ডে এই লুকের রমরমা রাজত্ব থাকবে। কিন্তু অন্যভাবে। আপার লিডের বদলে লোয়ার লিড সাজিয়ে তোলা হবে। ছোট চোখ ছাড়াও হুডেড আর মনো আইলিডের অধিকারীদের জন্য চমৎকার অপশন এটি। দারুণ মানিয়ে যায় চলতি সময়ের মিনিমাল মেকআপ ম্যানিয়ার সঙ্গেও। আপসাইড ডাউন স্মোকি আই লুকে যেহেতু লোয়ার আইলিডকেই বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়, তাই আপার আইলিডে যতটা সম্ভব কম মেকআপ ব্যবহার করাই ভালো। এ ক্ষেত্রে ম্লান শিমারি শেডের শ্যাডোগুলোই বেশি মানানসই। আর লোয়ার লিডে শুরুটা কাজল বা আইপেন্সিল দিয়ে করাই শ্রেয়। ল্যাশ লাইন আর ওয়াটার লাইনে এগুলোর ব্যবহার স্মোকি লুকের বেজ তৈরি করে দেবে অনায়াসে। আর আইলাইনারের বদলে এগুলো সামলানোও সহজ। তারপর ছোট ফ্ল্যাট ব্রাশ দিয়ে সাইডওয়ে স্ট্রোকে স্মাজ করে নেয়া হয় কাজল। আউটার ও ইনার কর্নার টেনে দু’পাশে প্রসারিত করে টানটান ভাব তৈরি করা হয় চোখে। তারপর কাজলের এই টানা রেখার উপর মানানসই আইশ্যাডো দিয়ে আবার স্মাজ করে দেয়া হয়। ফলে কোমল ধোঁয়াশা ভাব তৈরি হয় সাজে। তৈরি হয় পারফেক্ট স্মোকি আই। সবশেষে মাসকারা দিয়ে ফাইনাল টাচ দেয়া হয়।
রিভার্স উইংগড লাইনার
ক্যাট আইলাইনারের চিরচেনা ছক ভেঙে অন্য রকম চমকদার লুকের আভাস দিচ্ছে ইনস্টাগ্রাম। মেকআপ আর্টিস্টরা মজেছেন রিভার্স উইংগড লাইনারে। এখন আউটওয়ার্ড আইলাইনের বদলে রেখা টানা হচ্ছে ইনওয়ার্ড মোশনে। অর্থাৎ চোখের বাইরের কোণে টানা কাজলের প্রচলিত রূপ পাল্টে গেল। তা সরে এসেছে চোখের ভেতরের কোণে। ফলাফল যাই হোক, অনেককেই দেখা যাচ্ছে এ লুকে।
রিভার্স আইল্যাশ
‘ফ্লিপ ইওর ফলসি’-এ ট্রেন্ড চলছে এখন সাজে। ব্যাকওয়ার্ড বিউটিফুল এ লুক জনপ্রিয় করে তোলার পেছনের কারিগর ব্রিটিশ মেকআপ আর্টিস্ট পাবলো রদ্রিগেজ। মানুষের ন্যাচারাল আইল্যাশের একঘেয়েমি কাটাতেই তার এই ব্যতিক্রমী প্রচেষ্টা। অনায়াসেই করে নেয়া যায়, কিন্তু ফলাফল অদ্ভুত। ফলস ল্যাশকে সাধারণত গোড়ার দিকে আটকে নেয়ার নিয়ম থাকলেও আউট অফ দ্য বক্স এ লুকে করা হয় উল্টোটা। ল্যাশের বেজটা বাইরের দিকে রেখে প্রান্তের অংশ আটকে নেয়া হয় ন্যাচারাল আইল্যাশের সঙ্গে। যা চোখে দেয় জিওম্যাট্রিক স্পাইডারি লুক। পরীক্ষাপ্রাণিত মেকআপ লুক যাদের পছন্দ, তাদের জন্য এ বছরের মাস্ট ট্রাই ট্রেন্ড এটি।
রিভার্স ওমব্রে লিপ
ওমব্রে লিপের রমরমা দেখা গেছে বিগত কয়েক বছরে। পুরোনো ট্রেন্ডই ফিরেছে আবার। কিন্তু বৈপরীত্যকে সঙ্গে নিয়ে। সম্প্রতি যা পরিচিত হয়ে উঠেছে রিভার্স ওমব্রে নামে। মূলত ঠোঁটের ভেতরের অংশ গাঢ় রেখে বাইরের দিকে লিপস্টিকের রঙ হালকা হতে শুরু করে এ প্রক্রিয়ায়। সিঙ্গেল টোন কিংবা ব্লারড লিপ হিসেবেও পরিচিত এটি। সে জন্য প্রথমেই ঠোঁটে কনসিলার দিয়ে তৈরি করে নেয়া হয় বেজ। তারপর ঠোঁটের ঠিক মাঝের অংশে লিপস্টিক মেখে নেয়া হয়। বাকি ঠোঁটে আঙুল কিংবা ব্রাশ বুলিয়ে নেয়া হয় এমনভাবে, যাতে সে অংশে অকৃত্রিমতা ফুটে ওঠে।

 জাহেরা শিরীন
মডেল: আয়শা
মেকওভার: পারসোনা
ছবি: সৈয়দ অয়ন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back To Top