skip to Main Content

ব্লগার’স ডায়েরি I হিজাবের রকমফের

একদম কালো! হিজাব বলতে কি চোখে ভেসে ওঠে এমন কিছু? তবে কি একঘেয়ে কালো আবায়া বা বোরকাতেই সীমাবদ্ধ হিজাবের স্টাইলিং। ব্যাপারটা মোটেই তেমন নয়; বরং এই পরিধেয় ব্যক্তিত্বের পরিচায়ক। আত্মপ্রকাশের একধরনের মাধ্যম। নিজের বিশ্বাসকে উপস্থাপনের পন্থা। তাই সেটা ব্যক্তিত্বের মতোই রংবেরঙের হতে পারে। শুধু কালোতে আটকে থাকতে হবে, ব্যাপারটা মোটেই তেমন নয়। ব্যক্তি পছন্দের ভিত্তিতে কালার প্যালেটের যেকোনো রংই উঠে আসতে পারে হিজাবের স্টাইলিংয়ে।
একজন ফ্যাশন ডিজাইনার এবং মডেস্ট ফ্যাশন অ্যাডভোকেট অ্যান্ড এক্সপার্ট হিসেবে কাজ করার ফলে হাজারো রকমের হিজাব সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা রয়েছে। এর রং নিয়ে খেলা কিংবা তা দিয়ে কালার মুড সৃষ্টির মাধ্যমে তৈরি করা যায় স্টাইল স্টেটমেন্ট। তবে উপায়গুলো হওয়া চাই সহজ এবং সিজন ফ্রেন্ডলি। ইন্টারন্যাশনাল মডেস্ট ফ্যাশন ট্রেন্ডকেও মাথায় রাখতে হবে হিজাব স্টাইলিংয়ের ক্ষেত্রে। আর ‘ফ্যাশন উইদ ফেইথ’ আমার সবচেয়ে পছন্দের টার্ম। হিজাবের রঙের ক্ষেত্রে পছন্দ ন্যুড অ্যান্ড ন্যাচারাল, ব্রিক, রোজ পিঙ্ক, মভ, রেড, ব্লু আর কালোগুলো।
এগুলোর প্রতিটি আমার ব্যক্তিত্বের সঙ্গে দারুণ মানিয়ে যায়। সেই সঙ্গে স্কিন টোনকে খুব সুন্দর কমপ্লিমেন্ট করে। এ ছাড়া স্টাইলিংয়ের ক্ষেত্রেও আমার কিছু পার্সোনাল ফেবারিট রয়েছে। যেমন:
ম্যাক্সি কাভারেজ স্টাইল
গরমে দারুণ আরামদায়ক টাইমলেস এ হিজাব স্টাইল। উৎসবসম্মতও। যারা ম্যাক্সিমাম কাভারেজ পছন্দ করেন, তাদের জন্য জুতসই। তবে এ ধরনের হিজাব স্টাইলিংয়ের প্রথম শর্ত লাইটওয়েট। ব্রিদেবল ম্যাটেরিয়ালের হিজাব বেছে নেওয়া। এতে করে স্টাইলিং সহজ হয়, আরামে থাকা যায় দিনভর।
ওয়ান সাইড র‌্যাপ স্টাইল
যে কারও পার্সোনাল গো টু স্টাইল হতে পারে এটি। কর্মজীবীদের জন্য পারফেক্ট। মাত্র দুই মিনিটেই স্টাইলিং সেরে নেওয়া যায়। দুটো পিনই যথেষ্ট। কটন ছাড়াও সিল্ক হিজাব দিয়ে এ স্টাইল সুন্দর দেখায়। যারা সি থ্রু হওয়ার কারণে শিফন হিজাব এড়িয়ে চলেন, তারা বেছে নিতে পারেন লাক্সারি ক্রেপ হিজাব। এ ধরনের হিজাবে ওয়ান সাইড র‌্যাপ স্টাইলিং আরও অভিজাত দেখায়। সেই সঙ্গে আরামদায়কও।
টারবান
তরুণ হিজাবিদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয় এ স্টাইলিং। লুক লো মেইনটেনেন্স। পিনের খুব বেশি প্রয়োজন পড়ে না। সামার ফ্রেন্ডলি। এথনিক কিংবা ওয়েস্টার্ন- সব ধরনের মডেস্ট লুকের সঙ্গে মানিয়ে যায় টারবান স্টাইল। সাধারণ স্কয়ার বা রেকট্যাঙ্গুলার শেপের স্কার্ফ দিয়ে সারা হয় স্টাইলিং। দেয় স্ট্যান্ডার্ড কাভারেজ। ফাঙ্কি ইয়াররিং আর চাঙ্কি জুয়েলারি এই হিজাব স্টাইলের সঙ্গে খুব সুন্দর দেখায়।
টিপস অ্যান্ড ট্রিকস
 স্কিনটোনের সঙ্গে মানানসই হওয়া চাই হিজাবের রং
 হিজাব পরলে কটন ইনার ক্যাপ ব্যবহার করাই ভালো। পলিয়েস্টার বা লাইক্রা ফ্যাব্রিক চুল আর স্ক্যাল্পের জন্য ক্ষতিকর
 চুল ভেজা থাকলে তা না শুকিয়ে হিজাব বাঁধা যাবে না। মাইগ্রেন, চুল পড়ে যাওয়া কিংবা মাথাব্যথার মতো সমস্যা হতে পারে
 আবহাওয়া বুঝে এই পরিধেয়র ম্যাটেরিয়াল বাছাই করতে হবে
 ভালো মানের হিজাব পিন ব্যবহার করতে হবে, দীর্ঘ সময় স্টাইল ধরে রাখা যাবে এ ক্ষেত্রে
 ওয়াশিং মেশিনে ধোয়া যাবে না। এতে ফ্যাব্রিক নষ্ট হয়ে যেতে পারে
 সূর্যের আলো থেকে দূরে, পরিষ্কার আলমারিতে স্টোর করতে হবে। এভাবে হিজাব দীর্ঘদিন ভালো থাকবে

 মুমতাহানা এলাহি খান
ফাউন্ডার ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর আবায়াহলিক
ফ্যাশন ডিজাইনার অ্যান্ড মডেস্ট, ফ্যাশন অ্যাডভোকেট বাংলাদেশ

হিজাব ও ওয়্যারড্রোব: আবায়াহলিক

ফেসবুক: mumtahana.elahi.5
ইনস্টাগ্রাম: @mmtahanaelahi,@abayaholic

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Back To Top